বাংলাদেশের জনপ্রিয় কিছু eCommerce Site

বর্তমানে বিশ্বে ই-কমার্স  সাইট (eCommerce site) ও ব্যবসা কতটা গ্রহণযোগ্য ও জনপ্রিয় তা কিছু পরিসংখ্যান দিলেই সহজে বুঝা যাবে। ই-কমার্স ব্যবসার দিক দিয়ে সবচেয়ে অগ্রগামী চীন তারপরে আমেরিকা। বিশ্বের সবচেয়ে বড় দশটি ই-কমার্স সাইটের তিনটি হলো চীনের এবং এই তিনটি সাইটের সম্মিলিত মাসিক ইউনিক ভিজিটরের সংখ্যা হচ্ছে ৮১,২৭,৫০,২৫৬ আর আমেরিকার ৩ টি সাইটের সম্মিলিত মাসিক ইউনিক ভিজিটরের সংখ্যা হচ্ছে ৮৯,০৩,৩৪,৮৭৮। তবে ই-কমার্স  সাইটে টাকার অঙ্কে ব্যবসার দিক দিয়ে গত বছর চীনের অর্জন ৬৭২ বিলিয়ন ডলার আর আমেরিকার অর্জন হচ্ছে ৩৪৯ বিলিয়ন ডলার।

ই-কমার্সের ইতিহাস

ই-কমার্স পরিষেবা অথবা পণ্য  ক্রয় এবং বিক্রয়কে ইলেকট্রনিক চ্যানেলগুলির মাধ্যমে ইন্টারনেটে উল্লেখ করে। ১৯৬০ সালের দিকে ইলেকট্রনিক ডাটা বিনিময় (ইডিআই) মাধ্যমে ই-কমার্সের প্রথম প্রকাশ ঘটে। ১৯৯০ এর দশকে এবং ২000 সালের প্রথম দিকে ইন্টারনেট ব্যবহারের বৃদ্ধি এবং অনলাইন বিক্রেতার আবির্ভাবের মধ্য দিয়ে এর জনপ্রিয়তা বাড়ে। ১৯৯৫ সালে জেফ বেজোসের গ্যারেজে আমাজন একটি বইয়ের শিপিং ব্যবসা শুরু করে।EBay, তার ভোক্তাদের একে অপরের কাছে পণ্য বিক্রি করতে সহায়তা করার মাধ্যমে 1995 সালে অনলাইন নিলাম চালু করে যা ১৯৯৭ সালে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে উঠে।

যেকোনো ডিজিটাল প্রযুক্তি বা ভোক্তা ভিত্তিক ক্রয় বাজারের মতো, ই-কমার্স দিনদিন বিকশিত হচ্ছে। মোবাইল ডিভাইসের কারনে তা আরও জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে, মোবাইল কমার্স তার নিজস্ব বাজার গড়ে তুলেছে। ফেসবুক এবং Pinterest এর মতো সাইটগুলির উত্থানের সাথে, সোশ্যাল মিডিয়া ই-কমার্সের একটি গুরুত্বপূর্ণ ড্রাইভার হয়ে উঠেছে। ২০১৪ সালের হিসাব মতে, সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে বিক্রিত পণ্যের ৮৫% বিক্রি হয়েছে ফেসবুকের মাধ্যমে।

বাংলাদেশের জনপ্রিয় কিছু eCommerce Site

2 Comments

  1. Md Anisur Rahman October 23, 2017 at 7:43 am - Reply

    এখনি ডট কম এখন আর দৃশ্যমান নাই

    • sunshine October 25, 2017 at 10:04 am - Reply

      Thanks for your kind information. We have updated our content.

Leave A Comment